দারুচিনি | দারুচিনির ১১ টি অজানা উপকারিতা ও অপকারিতা

দারুচিনি

দারুচিনি

দারুচিনি সবার পরিচিত একটি মসলাজাতীয় খাদ্য। বই পুস্তকের ভাষায় একে দারুচিনি বললেও গ্রাম বাংলায় একে ডালচিনি বলে থাকে। সেই প্রাচীনকাল থেকে দারুচিনি মসলা হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। দারুচিনি ছাড়া রান্না যেন অপূর্ণ থেকে যায়। এর স্বাদ ঝাঁঝালো মিস্টি এবং সুগন্ধিযুক্ত।

শুধুমাত্র মসলা হিসাবে ব্যবহার ছাড়াও এর অনেক ঔষধি গুনাগুন রয়েছে। স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি ,ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রণ সহ আরো বহুবিধ রোগ নিরাময়কারী গুন্ রয়েছে এই দারুচিনির মধ্যে।

দারুচিনির উপকারিতা :

১.আপনি চা যেমনভাবে খেয়ে থাকেন ঠিক তেমন ভাবে দারুচিনি খেতে পারেন। গরম পানিতে পরিমাণমতো দারুচিনি ফুটিয়ে সেই পানি খেলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।

২.আপনার যদি গলাব্যথা ও খুসখুশি কাশি হয়ে থাকে তাহলে এক কাপ গরম পানিতে সামান্য মধু ও এক ইঞ্চি পরিমান দারুচিনি মিশিয়ে খেলে আরাম পাবেন।

৩.বাতের ব্যাথা নিরাময়ে এটি ভালো কাজ করে। এক চামচ  দারুচিনির গুঁড়ো ও সমপরিমাণ মধু একত্রে পানির সাথে মিশিয়ে খেলে বাতের ব্যাথা দূর হয়।

৪.দারুচিনি লিম্ফোসাইটিক লিউকেমিয়া প্রতিরোধ করে। এক কাপ পানির সাথে এক ইঞ্চি পরিমান দারুচিনি আগুনে জ্বাল দিয়ে চায়ের মতো খেলে লিম্ফোসাইটিক লিউকেমিয়ার আশংকা হ্রাস পায়।

৫.দারুচিনি ছত্রাকজনিত ইনফেকশন দূর করে। এই সমস্যায় ভুগে থাকলে আপনি চায়ের মতো করে দারুচিনি দিনে দুই বেলা খেতে পারেন।

৬.দারুচিনি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। টাইপ ২ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি একটি আদর্শ পথ্য। এক ইঞ্চি পরিমান দারুচিনি এক কাপ পরিমান পানির সাথে ফুটিয়ে খেলে ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রণে আসে।

৭.দারুচিনি পেটের ব্যাথা দূর করে। এছাড়া এটি পেট পরিষ্কার করে। রাত্রে শোবার আগে এক ইঞ্চি পরিমান দারচিনি চিবিয়ে খেয়ে নিলে পেটের ব্যাথা দূর হয় এবং পেট পুরস্কার হয়।

৮.পেটের গ্যাস দূর করে:এক ইঞ্চি পরিমান দারুচিনি এক কাপ পরিমান পানির সাথে ফুটিয়ে চায়ের মতো খেলে পেটের গ্যাস দূর হয়। এভাবে নিয়মিত খেলে পেটের গ্যাস স্থায়ীভাবে দূর হয়।

.দারুচিনি হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ,দারুচিনি রক্তের কোলেস্টেরল থেকে খারাপ এলডিএল কোলেস্টেরল ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমায়।

১০.দারুচিনিতে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান রয়েছে। এই উপাদান বিভিন্ন রোগের আক্রমণ প্রতিহত করে।

১১.দারুচিনি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরকে ফ্রি রাডিকেলস এর হাত হতে রক্ষা করে।

দারুচিনির অপকারিতা :

প্রতিটি জিনিসের উপকারিতা যেমন রয়েছে তেমনি অপকারিতাও রয়েছে। তবে সবক্ষেত্রে সমান হয়না। কিছু কিছু ক্ষেত্রে কম বেশি হয়ে থাকে। দারুচিনির অপকারিতা সামান্য। সেগুলো নিম্নরূপ :

গর্ভবতী মহিলারা বেশি পরিমানে দারুচিনি খেলে গর্ভপাত হয়ে যেতে পারে। তাই এক্ষেত্রে সাবধান হওয়া দরকার। আপনি যদি সারাদিন দারুচিনির উপর পড়ে থাকেন তাহলে মাথাব্যাথা হতে পারে।

দারুচিনি ইংরেজি কি ?

অনেকে দারুচিনির ইংরেজি জানতে চান। দারুচিনির ইংরেজি হলো "cinnamon"

তবে গর্ভবতী মহিলাদের দারুচিনি খাওয়া উচিৎ নয়। এছাড়া অন্যান্যদের ক্ষেত্রে পরিমিত পরিমানে দারুচিনি ভালো ফলাফল বয়ে আনতে পারে। তাই প্রতিদিন দারুচিনি খাওয়ার অভ্যাস করুন।

 

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ