লটকন | লটকনের ১২ টি জাদুকরী উপকারিতা

 লটকন

লটকন

লটকন বর্ষার ফল। বর্ষার সময়ে এই ফলটিকে বাজারের সর্বত্র দেখা যায়।টক -মিষ্টি এই ফলের রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। রসালো এই ফলের রয়েছে ব্যাপক উপকারিতা। ১০০ গ্রাম লটকন ফলে রয়েছে ভিটামিন সি ১৭৮ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ১৬৯ মিলিগ্রাম, শর্করা ১৩৭ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ১৭৭ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি- ১৪.০৪ মিলিগ্রাম এবং ভিটামিন বি- শূন্য দশমিক ২০ মিলিগ্রাম।

তাই স্বল্পমেয়াদি এই ফল খেয়ে আমরা ভিটামিনের চাহিদা অনেকাংশে পূরণ করতে পারি। দামেও বেশ সস্তা। প্রতি কেজি লটকন ফল ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। অবশ্য সময় স্থানভেদে দামের কিছুটা কম বেশ হতে পারে।



লটকনের উপকারিতা:

.লটকন বর্ষার ফল। আর এই বর্ষাকালে জ্বর -সর্দি -কাশি ইত্যাদি রোগের প্রার্দুভাব বেড়ে যায়। লটকনে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি। ভিটামিন সি এসব রোগ প্রতিরোধে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।

.লটকন ফলে থাকা খনিজ উপাদান মানসিক অবসাদ দূর করতে ভূমিকা রাখে।

.লটকন রয়েছে পর্যাপ্ত ভিটামিন ,খনিজ মিনারেল। আর এসব উপাদান রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে।

.লটকন রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি। ভিটামিন সি ত্বকের বিভিন্ন ইনফেকশন দূর করে এবং চর্মরোগ থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

.আমাদের অনেকের ত্বক ফেটে যায়। লটকন ফল ত্বকের ফেটে যাওয়া রোধ করে এবং ত্বকের রুক্ষতা কমাতে সাহায্য করে।

.মানব শরীরের জন্য প্রতিদিন ভিটামিন সি গ্রহণ করা দরকার। আপনি যদি দৈনিক একটি লটকন ফল খান তাহলে আপনার একদিনের ভিটামিন সি' চাহিদা পূরণ হয়ে যাবে।

.লটকন ফল আমাদের রুচি বাড়াতে পারে এবং বমি বমি ভাব দূর করতে সাহায্য করে।

.লটকন রয়েছে থায়ামিন অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট।যাদের মুখে জিহ্বায় ঘন ঘন ঘাঁ হয় তারা লটকন খেলে ভালো উপকার পাবেন। তাই দৈনিক একটি হলেও লটকন ফল খান।

.লটকন ফল আমাদের শরীরকে বেরিবেরি রোগের সংক্রমণ থেকে মুক্ত রাখে।

১০.লটকন ফলে থাকা খনিজ উপাদান আমাদের দাঁত হাড় মজবুত করে।

১১.গবেষণায় দেখা গেছে যে ,লটকন ফল কোলন ক্যানসার প্রতিরোধ করে।

১২.গরমের সময়ে আমাদের শরীর থেকে অতিরিক্ত ঘাম বের হয়ে যায়। আর এই পানিশূন্যতা পূরণে লটকন ফল ভালো কাজ করে।

 

লটকন ফলের অপকারিতা

লটকন ফলের অপকারিতার চাইতে উপকারিতাই বেশি। তবে এতে সামান্য কিছু অপকারিতা রয়েছে। কথায় আছে ,অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়। তাই অতিরিক্ত লটকন খেলে এসিডিটি দেখা দিতে পারে ,অতিরিক্ত লটকন খেলে ক্ষুধামন্দা দেখা দিতে পারে , তাই পরিমাণমতো লটকন খেতে হবে। পরিমাণমতো লটকন খেলে অপকারিতার কোনো সম্ভাবনা নেই।

গর্ভাবস্থায় লটকন খাওয়া যাবে কি ?

অনেকে প্রশ্ন করে থাকেন গর্ভাবস্থায় লটকন খাওয়া যাবে কিনা। অনেকে আবার সন্ধিহান থাকেন গর্ভাবস্থায় লটকন খেলে কোনো ক্ষতি হবে কিনা। আজকে আপনাদের এই সন্দেহ ও ভয় দূর হবে। আপনি গর্ভাবস্থায় লটকন খেতে পারেন। এতে কোনো সমস্যা নেই। বরং গর্ভাবস্থায় লটকন ফল খাওয়া অনেক উপকারী। তবে পরিমাণমতো খেতে হবে। দৈনিক ২-৩ টি লটকন খেতে পারেন।

লটকন গাছ:

আমরা অনেকেই লটকন ফল খেয়ে থাকি কিন্তু লটকন গাছ চিনিনা। আপনাদের সুবিধার্থে এখানে লটকন গাছের কিছু ছবি দিলাম। আশা করি এখন থেকে লটকন গাছ চিনতে পারবেন।

লটকন ইংরেজি কি ?

লটকনের বৈজ্ঞানিক নাম হলো Baccaurea motleyana. এছাড়াও এটি আরো অনেক নাম পরিচিত। যেমন , Lamkhae, Ra mai,Rambai, Rambi, Mafai-farang, ইত্যাদি

 

আমাদের এই প্রবন্ধটি পড়ে নিচ্চয় বুজতে পেরেছেন যে,লটকন ফল আমাদের শরীরের জন্য কতটা উপকারী। তবে পরিমাণমতো খাবেন। বাজারে যতদিন ফলটি পাওয়া যায় ততদিন খেতে থাকবেন। তাহলে দেখবেন অনেক রোগের হাত থেকে রেহাই পাবেন। আমাদের এই নিবন্ধটি ভালো লাগলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ